Header Ads

আজ বাংলা
ইংরেজি

ইকরামুল মুসলিমীন ; মানবসেবায় নববর্ষ উদযাপন

ইকরামুল মুসলিমীনের শীতবস্ত্র বিতরণ
          

-হিফজুর রাহমান

তুমি দৃশ্যমান জীবের সেবা না করতে পারলে, অদৃশ্য সৃষ্টিকর্তাকে কীভাবে পাবে?


২০২০ সাল। কয়েক মাস যেতে না যেতেই বাংলাদেশে হানা দেয় মহামারি করোনা। 

করোনা আক্রান্ত হলে, ভাই তার অপর ভাইকে ভুলে গিয়েছে, মা ভুলেছে তার সন্তান। 

সে সঙ্কটময় মুহূর্তে যে সকল বীর সেবকরা মানবসেবায় আত্মনিয়োগ করেছিলেন, তন্মধ্যে মৌলভীবাজার জেলায় "ইকরামুল মুসলিমীন মৌলভীবাজার" নামক সংগঠনের সদস্যরা অন্যতম। 


যখন দেখা গেলো কেহ করোনা আক্রান্ত হলে, কেউ তার পাশে যাচ্ছেনা! দূরে ঠেলে দিচ্ছে আপনজনরা। মারা গেলে,কাফন-দাফন করতে অনীহা প্রকাশ করে পরিবার!!


সেদিক লক্ষ্য করে, ইকরামুল মুসলিমীন মৌলভীবাজার এর প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা এহসানুল হক জাকারিয়া যখন সংগঠন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন, তখন মৌলভীবাজার জেলার প্রত্যেক উপজেলা থেকে সদস্য হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন, সংগঠনের বর্তমান সদস্যরা। 


শুরুতে কয়েকজন সদস্য নিয়ে পথ চলা শুরু করলে, ধীরেধীরে সদস্য সংখ্যা বাড়তে থাকে সংগঠনের। 

বাড়তে থাকে আত্মনিয়োগে আগ্রহী যুবকদের সংখ্যা। 


ধাপেধাপে এগিয়ে যায় সংগঠন। বাড়তে থাকে সেবামূলক কার্যক্রম। করোনা রুগীর সেবা থেকে শুরু করে, রুগীর বাড়িতে খাবার পৌঁছানো, ফ্রী প্লাজমা সার্ভিস,করোনা রুগীসহ শ্বাসকষ্ট রুগীকে ফ্রী অক্সিজেন সার্ভিস, মৃতের জন্য ফ্রী কাফনের ব্যবস্থা সহ বিভিন্ন কার্যক্রম। 


জানা যায়, ২০২০ সাল পর্যন্ত সংগঠনটি ২৬ টি দাফন ও ৪ টি হিন্দু ধর্মাবলম্বীর সৎকার করেছে। যাদের করোনা পজেটিভ ছিলো। তাছাড়া একশত পঞ্চাশের অধিক রুগীকে ফ্রী অক্সিজেন সার্ভিস দেওয়া হয়েছে। 


 আগমন হয় ২০২১ সালের। সবাই যখন নববর্ষ উদযাপনে ব্যস্ত। ইকরামুল মুসলিমীনের সদস্যরা নববর্ষের আনন্দ খুঁজে নিয়েছে,মানবসেবায়।

রাজনগর উপজেলার করাইয়া গ্রামে করোনা পজেটিভ রুগীকে অক্সিজেন দেওয়া সহ মৌলভীবাজার এর ছিন্নমূল মানুষের কাছে শীতবস্ত্র বিতরণ করে, সারারাত নববর্ষ উদযাপন করেছে ইকরামুল মুসলিমীন মৌলভীবাজার।



অনেকে বলে, মানবসেবী বুঝি অর্ধেক পাগল থাকে। তারা নাকি মানবসেবাতেই নিজের জীবন উৎসর্গ করে দেয়। 

তাহলে বলতেই হয়,ইকরামুল মুসলিমীন মৌলভীবাজার তার দৃষ্টান্ত নমুনা।


কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.