Header Ads

আজ বাংলা
ইংরেজি

এই সেই "চা" বইয়ের পাতায় যার সাথে আমাদের পরিচয়


চায়ের দোকানের মালিক ইকবাল ভাই


হিফজুর রাহমান : চা নিয়ে অনেক অনুভূতির গল্প শুনেছেন হয়তো। পড়েছেন গল্পকারের লেখা গল্প। কবির লেখা কবিতা। শুনেছেন,শিল্পির কণ্ঠে গান।
লেখকের লেখা টঙ দোকানের চায়ের চুমুকে হারিয়ে গেছেন, দূর অজানায়।
খুঁজে বেড়িয়েছেন,কোথায় সে টঙ দোকান?!  চায়ে চুমুক দিয়ে হারিয়ে যাওয়া যায় স্বাদের অথৈসাগরে।
হ্যাঁ! আমরা খুঁজে বের করেছি এমন একটি সাধারণ টঙ দোকান। যার কল্পনা আপনি করে যাচ্ছেন জল্পনার সাগরে।

আমরা সরেজমিনে উপস্থিত হয়ে দেখেছি, চায়ে চুমুক দিয়ে স্বাদ যাচাই করেছি। হ্যাঁ এটাই সেই চা। যাকে নিয়ে লেখকরা লেখেছেন হাজারো বইয়ের পাতা।
কলমের কালিতে চায়ের স্বাদকে দিয়েছেন পূর্ণতা।
সুন্নাহ পরিবারের সদস্যরা যদিও প্রথমে ভেবেছিলো, দোকানকোঠা হবে অনেক বড় ও কারুকার্যময়। না! এগুলো ভুল প্রমাণিত করে, আমাদের সামনে সে লেখকদের কল্পনার টঙ দোকান হয়ে প্রকাশ পেলো।

আসতে চান আপনি? দেখতে চান জল্পনাকল্পনার চায়ের দোকান?  চুমুক দিতে চান চায়ের কাপে?
তাহলে লোকেশন ফলো করুন -
দ্যা সুন্নাহ বিডি পরিবারের পক্ষ থেকে আপনার ও দোকানির জন্য থাকবে শুভকামনা।

"মৌলভীবাজার শহরের চাঁদনীঘাট থেকে মহলাল বাজার আসতে হবে। মহলাল বাজার থেকে রিকশা বা সি.এন.জি যোগে চৌধুরীবাজার যেতে হবে। চৌধুরীবাজারে ইকবাল ভাইয়ের দোকান বললে, যেকেউ দোকানটা দেখিয়ে দিবে আপনাকে।"

যাদের হাতে তৈরী হয় চা


যাদুর চা'য়ে চুমুক দেওয়ার মুহূর্ত 

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.