Header Ads

আজ বাংলা
ইংরেজি

ভরসন্ধ্যায় বাইক নিলো কে?-sunnah

সে অনেকদিন আগের কথা।  সন্ধাবেলা নিউমার্কেট পার্কিং এর সামনে প্রচন্ড ভিড় ছিলো।
একজন পুরুষ আর একজন মহিলা,সম্ভবত স্বামী-স্ত্রীই হবেন,
তাঁদের মধ্যে খুব ঝগড়া হচ্ছে।
গোটা চল্লিশ পঞ্চাশ জন মানুষ
পাশে দাঁড়িয়ে দেখছেন আর মজা নিচ্ছেন।
মহিলা বললোঃ-" যতদিন না কার কিনছো,তোমার সঙ্গে যাবো না, বলে দিলাম।
তোমার বাইকে চড়েচড়ে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি,
ধূলা বালি আর ভাল লাগেনা।
মহিলার স্বামী বললো-
"এতো পাবলিকের সামনে
আমাকে বেইজ্জতি করছো কেন ??
বাইকের চাবিটা দাও।"
মহিলা বললোঃ-" না, চাবি দেবো না,
কৃপণ কোথাকার।
তোমাকে বিয়ে করে আমার
পুরো জীবনটাই বরবাদ হয়ে গেলো।"
এতক্ষণ যারা পাশে দাঁড়িয়ে ঝগড়া দেখছিলেন,
তাদের কেউ কেউ মিলে মহিলাকে বোঝাতে লাগলেন,
কিন্তু কোন কাজ হলোনা।
ভীষন একগুঁয়ে আর জেদি মহিলা।
এবার লোকটা রেগে গিয়ে বললোঃ-
"তুমি চাবিটা দিবে!
না-কি আমি তালাটা ভাঙবো?"
মহিলা বললোঃ-
"যতক্ষন না কার কিনছো, চাবিও দেবোনা,
আর তোমার সঙ্গে বাড়িতেও যাবোনা।"
লোকটা বিরক্ত হয়ে
উপস্থিত জনগণের সাহায্য চাইলো।
দু-চারজন যুবকের সাহায্য নিয়ে
শেষমেশ তালা ভাঙা হলো।
ভদ্রলোক বাইকে চড়ে স্ত্রী-র উদ্দেশ্যে বললোঃ-
"শেষবারের মতো বলছি,
আজকের মতো বাইকে চড়ে নাও।
কাল সকালেই কার কিনবো,
এখন আর ঝামেলা করোনা।"
মহিলা গুটিগুটি পায়ে
বাইকের সামনে গিয়ে বললোঃ-
তাহলে আমি চালাই তুমি পিছনে বসো।
এর পর হাসি হাসি মুখে দুজনে চলে গেলো।
ভাবলাম, যাক- আপদ গেলো।
যে-যার নিজের কাজে চলে গেলাম।
"ঘন্টাখানেক পর, বাজার করে ফিরছি।
দেখলাম, একই জায়গায় তিরিশ-চল্লিশ জন লোকের ভীড়।
ভীড়ের মাঝখানে কদমতলির মনসুর সাহেব
মাথায় হাত দিয়ে চিৎকার করে কাঁদছেন,
আর বলছেনঃ-"
১ মাস হলো বাইকটা কিনলাম...
"এই ভর সন্ধ্যায় এরকম বাইক চুরি...!
এতো মজবুত তালা -- ভাঙলো কোন শালা??"
পরোপকারী পাবলিক -তখন,
*Silent Mode* এ...
শিক্ষা- কারো উপকার করার আগে একটু ভেবে নিবেন, এই উপকার করতে যেয়ে অন্যের বড় কোন ক্ষতি হচ্ছেনাতো।

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.